হজ্জ্বের শিক্ষা- পর্ব-১ মোসলেম উদ্দীন Lessons of Hajj-1 Enginer Moslem Uddin , Ottawa

52

Lessons of Hajj-1 Enginer Moslem Uddin , Ottawa হজ্জ্বের শিক্ষাপর্ব-১ মোসলেম উদ্দীন

হজ্জ কেবল আর্থিক ও আত্মিক ইবাদত নয় বরং মুসলমানদের জাতীয় ও আন্তর্জাতিক সমস্যা সমাধান এবং পারস্পরিক সহযোগিতা বৃদ্ধির শিক্ষার একটা পবিত্র উপায়।পবিত্র মাবরুর  হজ্জ  পালনে  পূর্বের গুনাহ মাফের সাথে অনেক শিক্ষা অর্জন হয়। হজ্জ্ব , ধর্মীয়, আধ্যত্মিক, সামাজিক, অর্থনৈতিক, রাজনৈতিক ও আন্তর্জাতিক শিক্ষা দেয়।

হজ্জ্বের মাধ্যমে আমরা নিম্নের শিক্ষা সমূহ  পেয়ে থাকি:

  • আল্লাহর প্রতি আনুগত্যের ঘোষণা দেওয়া ও আনুগত্য করার শিক্ষা
  • তাওহীদ তথা একত্ববাদের চর্চা ও প্রতিষ্ঠা করার শিক্ষা
  • ইখলাস ও ঐকান্তিকতা অর্জনের শিক্ষা
  • সবার করা বা ধৈর্য্য ধরার শিক্ষা
  • মহান আল্লাহর দেয়া শরীয়তের প্রতি নিরংকুশ সমর্থন ও আত্মসমর্পণের শিক্ষা
  • নিজেকে সব সময় শিরকমুক্ত রাখার শিক্ষা
  • শির্কে লিপ্ত ব্যক্তিবর্গ থেকে দায়মুক্ত হবার ঘোষণা ও ইচ্ছাকৃতভাবে তাদের বিপরীত কাজ করার শিক্ষা
  • ঈমানকে উজ্জীবিত করার শিক্ষা
  • সব সময় আল্লাহকে স্মরণ করার শিক্ষা
  • আল্লাহর ডাকে সাড়া দানের শিক্ষা
  • অনবরত দোয়া করার শিক্ষা
  • দোয়া কবুল না হতে দেখে নিরাশ না হওয়ার শিক্ষা
  • আল্লাহর সন্তুষ্টি অর্জন অর্জনের শিক্ষা
  • রাসূল (সাঃ )-এর অনুসরণ করার
  • আল্লাহর প্রতি ভরসা করার শিক্ষা বা তাওয়াক্কুল করার শিক্ষা
  • হজ্জের মাধ্যমে তাকওয়া অর্জন করার শিক্ষা :
  • আল্লাহর নিদর্শন ও সীমারেখাসমূহের প্রতি সম্মান প্রদর্শন: করার শিক্ষা
  • সাম্য মৈত্রীর উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত স্থাপন করার      শিক্ষা
  • ভ্রাতৃত্ববোধ জাগ্রত করার শিক্ষা
  • পিতার প্রতি ভালবাসা ও আনুগত্যের শিক্ষা
  • আন্তর্জাতিক ক্ষেত্রে নেতৃত্বদান করার

কয়েকটি পর্বে হজ্জ্বের শিক্ষা সমূহ সংক্ষেপে  আলোচনা করব ইন-শা আল্লাহ।

আল্লাহর প্রতি আনুগত্যের ঘোষণা দেওয়া ও আনুগত্য করার  শিক্ষা:

হজ্বের সূচনা হয় নিয়ত ও তালবিয়ার দ্বারা। এরপর বার বার উচ্চারণ করা হয় এ পবিত্র বাক্যমালা, যাতে আছে তাওহীদের ঘোষণা, আল্লাহর বিধানের সামনে সমর্পণ ও আনুগত্যের ঘোষণা।

হজ্জ্ব আমাদের এই শিক্ষা দেয়  যে প্রতিটি মানুষ দ্ব্যর্থহীন ভাবে  আল্লাহুর আনুগত্য করবে নিজের ইচ্ছাকে আল্লাহর ইচ্ছার কাছে সমর্পন করবে। হজ্জ্বের শিক্ষা হল আল্লাহর কাছে  আত্মসমপর্ণ করা। তালবিয়ার মাধ্যমে এই ঘোষণা দেওয়া হয় যে, এ আমার রবআমি  তোমার আনুগত্য  করতে তোমার দরবারে হাজির হয়েছি। তাওয়াফ করা, সায়ী করা, শয়তানকে  পাথর নিক্ষেপ করা, মাথা মুন্ডন করা , আরাফাতে অবস্থান করা  সবই আল্লাহর প্রতি আনুগত্যের প্রকাশ।

ইব্রাহিম (আ:)  তার প্রাণাধিক প্রিয় পুত্র হযরত ইসমাঈল (আ:) কে আল্লাহার হুকুম পালনের নিমিত্তে  কুরবানী করতে সামান্যতম দ্বিধা করেননি। বৃদ্ধ সন্তানকে এভাবে কুরবানী করতে উদ্যত হওয়া আল্লাহর প্রতি আনুগত্যের  এক ঊজ্জ্বল দৃষ্টান্ত।

হজ্জ্বের মাধ্যমে আমরা এ শিক্ষা পাই যে, যখনই কোন আল্লাহর হুকুম আমাদের সামনে উপস্থিত হবে , কোনো রকম কালক্ষেপন না করে

নির্বিধায় তা পালন করতে হবে।

 

Facebook Comments